ভোট চুরির চেষ্টা হচ্ছে: ট্রাম্প

০৪ নভেম্বর,২০২০

ভোট চুরির চেষ্টা হচ্ছে: ট্রাম্প

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আরটিএনএন
ওয়াশিংটন: যুক্তরাষ্ট্রে জমে উঠেছে হোয়াইট হাউসে যাওয়ার লড়াই। গুরুত্বপূর্ণ স্যুইং স্টেট ফ্লোরিডার জয় নিশ্চিত করে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী জো বাইডেনের সঙ্গে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে আছেন ক্ষমতাসীন রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

বাইডেন এখন পর্যন্ত ২২৫ টি ইলেক্টোরাল ভোট নিশ্চিত করতে সমর্থ হয়েছেন। আর বিপরীতে ট্রাম্পের দখলে এখন পর্যন্ত ২১৩টি ইলেক্টোরাল ভোট। প্রথম দিকে পিছিয়ে থাকলেও ফ্লোরিডায় জয়ের পর এক টুইট বার্তায় তিনি অভিযোগ করেছেন, ‘বিরোধী শিবির ভোট চুরির চেষ্টা করছে’।

ডোনাল্ড ট্রাম্প ওই টুইট বার্তায় বিরোধী পক্ষকে অভিযুক্ত করে বলছেন, ‘আমরা জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী, কিন্তু তারা ভোট চুরির চেষ্টা করছে। আমরা কখনোই তাদের সেটা করতে দেবো না। নির্বাচন শেষ হওয়ার পরে ভোট গ্রহণ করা যায় না।’

অন্যদিকে ২২৫টি সম্ভাব্য ইলেক্টোরাল ভোট নিয়ে এগিয়ে থেকে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন ডেলাওয়ার অঙ্গরাজ্যে সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘নিশ্চিত জয়ের পথে’ রয়েছেন তারা।

এরইমধ্যে ফ্লোরিডায় জয় নিশ্চিত করেছেন ট্রাম্প। রাজ্যটিতে ২৯টি ইলেক্টোরাল ভোট রয়েছে। এ অঙ্গরাজ্য জয়ের ফলেই তার পুনর্নির্বাচনের আশা জেগে রয়েছে। এ অঙ্গরাজ্য যদি বাইডেন জিততে পারতেন, তবে ট্রাম্পের আশা ধূলিসাৎ হয়ে যেত। তবে সুইং স্টেটগুলোর ব্যাপারে নিশ্চিত তথ্য পাওয়ার আগে কে জিতবেন, তা বলা যাচ্ছে না।

তবে ফক্সের পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, ক্যালিফোর্নিয়াতে ট্রাম্পকে পেছনে ফেলবেন বাইডেন। সেখানে ৫৫টি ইলেক্টোরাল ভোট রয়েছে। এর পাশাপাশি ওরেগন অঙ্গরাজ্যও বাইডেনের দখলে চলে যেতে পারে। ওয়াশিংটনের ভোটও যেতে পারে বাইডেনের পক্ষেই।

তবে ডোনাল্ড ট্রাম্প ও জো বাইডেনের প্রাপ্ত সম্ভাব্য এই ফল থেকেই বলা যাচ্ছে না, কে পরবর্তী প্রেসিডেন্ট হতে যাচ্ছেন। কেননা, এখনও অপ্রত্যাশিত কিছু ঘটেনি। যার যেখানে জয় পাওয়ার কথা, তিনি সেখানেই এগিয়ে রয়েছেন। কিন্তু জাদুকরি সংখ্যাটি ২৭০। যে প্রার্থী ২৭০ ইলেক্টোরাল ভোট পাবেন তিনি নির্বাচনে জিতে যাবেন।

নির্বাচন পর্যবেক্ষকেরা আশা করছেন, কয়েকটি ব্যাটলগ্রাউন্ড রাজ্যের ফলাফল হোয়াইট হাউসের দৌড়ে গুরুত্বপূর্ণ হতে উঠতে পারে। এগুলোকে বলা হয় সুইং স্টেট। নির্বাচনি ফলাফল নির্ধারণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে এ অঙ্গরাজ্যগুলো।

সুইং স্টেট মিশিগান, জর্জিয়া, টেক্সাস ও উইসকনসিনে এগিয়ে রয়েছেন ট্রাম্প। পেনসিলভানিয়ায়, ওহাইও, নিউ হ্যাম্পশায়ার এবং নর্থ ক্যারোলাইনায় এগিয়ে রয়েছেন জো বাইডেন। ফ্লোরিডায় চলছে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হতে মোট ৫৩৮টি ইলেকটোরাল ভোটের মধ্যে অন্তত ২৭০টি নিশ্চিত করতে হবে। মার্কিন বার্তা সংস্থাগুলো জানিয়েছে, ভোটের পরিবেশ ছিল উৎসাহপূর্ণ ও ইতিবাচক। পরিস্থিতি ছিল অনেক শান্ত। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে ভোট প্রদান করেন আমেরিকানরা।

যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৭টার মধ্যে অনেক অঙ্গরাজ্যে ভোটগ্রহণ বন্ধ হয়ে যাওয়ার কথা। ব্যাটলগ্রাউন্ড ওহাইয়ো ও নর্থ ক্যারোলাইনাতে সাড়ে সাতটার মধ্যে এবং পরবর্তী পাঁচ ঘণ্টার মধ্যে বন্ধ হওয়ার কথা বেশিরভাগ ভোটকেন্দ্র। সবশেষে ভোটকেন্দ্র বন্ধ হয় আলাস্কাতে। সেখানে স্থানীয় সময় বুধবার রাত ১টায় ভোটগ্রহণ শেষ হবে।

মঙ্গলবার ভোটের দিনের আগেই ১০ কোটি ২ লাখ মানুষ আগাম ভোট দিয়েছেন। যা ২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের মোট ভোটারের ৭৩ শতাংশ। ইলেকশন প্রজেক্টের জন্য তথ্য সংগ্রহকারী ইউনিভার্সিটি অব ফ্লোরিডার অধ্যাপক মাইকেল পি. ম্যাকডোনাল্ড জানিয়েছেন, এবারের নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি হতে পারে ৬৭ শতাংশ। এমনটি হলে এক শতাব্দীর বেশি সময়ের মধ্যে দেশটির সর্বোচ্চ ভোটার উপস্থিতির রেকর্ড হবে।

মন্তব্য

মতামত দিন

ইউরোপ পাতার আরো খবর

পূর্ব ইউক্রেনের দুইটি অঞ্চলের স্বীকৃতি দিয়েছে রাশিয়া!

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনঢাকা: রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন টেলিভিশনের দেয়া এক ভাষণে বলেছেন, মস্কো পূর্ব ইউক্রে . . . বিস্তারিত

সম্মেলন থেকে চীনকে ন্যাটোর হুঁশিয়ারি

আন্তর্জাতিক ডেস্কআরটিএনএনঢাকা: বেলজিয়ামের রাজধানী ব্রাসেলসে শুরু হয়েছে ন্যাটো সম্মেলন। সোমবার সম্মেলন শুরুর প্রথম দিনই আ . . . বিস্তারিত

 

 

 

 

 

 

ফোন: +৮৮০-২-৮৩১২৮৫৭, +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, ফ্যাক্স: +৮৮০-২-৮৩১১৫৮৬, নিউজ রুম মোবাইল: +৮৮০-১৬৭৪৭৫৭৮০২; ই-মেইল: rtnnimage@gmail.com